শনিবার-ফাইনালে-বাদ-পড়তে-প

আড়াই বছর পর দলে ফিরে খেলেছেন চার ম্যাচ। কিন্তু ব্যাট কথাই বলছে না ওপেনার এনামুল হক বিজয়ের। ফাইনালে কি বাদ পড়ছেন তিনি? নাসিরের বেলায়ও একই প্রশ্ন। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে রান পাননি। রান পাচ্ছেন না ত্রিদেশীয় সিরিজেও। ওদিকে সাব্বিরের অবস্থাও ভালো নয়। অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ব্যাটেও রান নেই একদম। জাতীয় দলে তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে দেখা দিয়েছে প্রশ্ন। টানা ব্যর্থতায় তোপের মুখে তারা।

ম্যাচ শেষে এই চার ক্রিকেটারের ভবিষ্যৎ
নিয়ে প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হয়েছিল অধিনায়ক মাশরাফিকে। টানা ব্যর্থ বিজয় কি ফাইনালে থাকবেন? এমন প্রশ্নে মাশরাফি বলেন,‘‘আসলে নিশ্চিত না। এখন তো কেবল খেলাটা শেষ করে আসলাম। এটা নিয়ে ভাবার বিষয় আছে। বিজয়কে নিয়ে তো অনেক কথা হয়েছে, সে ঘরোয়া সব পর্যায়ে রান করেছে, বিপিএল বলেন, ফার্স্ট ক্লাস বলেন। আপনারাই তাকে এক্সপোজ করেছেন। তার উপর পূর্ণ আস্থা ছিল। তাকে নিয়মিত খেলিয়ে যাচ্ছি। সে যতক্ষণ আছে অবশ্যই আমরা তাকে ব্যাকআপ করছি। কঠিন সময় যেতে পারে। এমন না যে ফার্স্ট ক্লাসে রান করে এসেই আপনি আন্তর্জাতিক ম্যাচে রান করবেন। আমাদের ফার্স্ট ক্লাসের সঙ্গে একটা গ্যাপ অবশ্যই আছে। ’

আজকে লংকানদের বিপক্ষে ০ রানেই বোল্ড হন বিজয়। সাব্বির- নাসির কি বেশি চাপ নিয়ে ফেলছেন? মাশরাফি বলেন, ‘এমনটা হতে পারে। মেন্টালি এই চাপটা নিতে পারছে কি না সেটা একটা ব্যাপার। আরেকটা হচ্ছে টেম্পারমেন্ট। হয়তো বা তারা রান বেশি পছন্দ করে, সময় কাটানোর চেয়ে মনে করে রানটা কুইক আসলে তাড়াতাড়ি সেট হয়ে যেতে পারে। ফার্স্ট ক্লাসেও যদি দেখেন তিন, চার উইকেট পড়ার পরও স্ট্রাইক রেট কিন্তু ১০০ থাকে। কাজেই ওই অভ্যাসটা আমাদের কম। এমনকি ওয়ানডে ম্যাচেও যে কখনও কখনও উইকেট পড়ে গেলে ছোট সময়ের জন্য উইকেটে সেট হয়ে রান করা, ওই অভ্যাসটা হয়তো বা ন্যাচারালি আমাদের ক্রিকেটে একটু কম আছে। এখানে একটা ঘাটতি থাকতে পারে। আমার মনে হয় ওরা নিজেরাও খারাপ ফিল করছে আমার থেকেও। আমি চাইব যে ফাইনালের আগে এটা নিয়ে তারা চিন্তা করুক। ’

অত্যন্ত খারাপ সময় যাচ্ছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের। বিজয়, সাব্বির, নাসির এবং রিযাদ। এই চার ব্যাটসম্যান এক সঙ্গে টানা ব্যর্থ হওয়ায় দলের উপর প্রচণ্ড চাপ পড়েছে।

এদের ভবিষ্যত নিয়ে প্রশ্ন করা হলে মাশরাফি বলেন,‘ফাইনালের আগে আমার মনে হয় না ডিটেইলসে যাওয়া উচিৎ। আমি তাদের উপর কমপ্লেইন করতে পারতাম যদি তারা হার্ডওয়ার্ক ও চেষ্টা না করতো। তারা যে চেষ্টাটা করছে একটা-দুইটা ইনিংসে রান না করে ওখান থেকে বের হয়ে আসাটা কঠিন। আজকে হয়তো বা তাদের জন্য আরও ভালো কিছু করার ছিল। উইকেটে আরও সময় কাটাতে পারত। ২০-২২ ওভারে অলআউট হয়েছি। যে সময়টা পেয়েছি…. যদি আজকে স্ট্রাইক রেট কমও হতো তাহলেও কেউ প্রশ্ন আনতো না। আমার কাছে মনে হয় তাদের জন্য আজকে একটা ভালো সুযোগ ছিল। আপনি যাদের নাম বলেছেন তাদের মধ্যে একজন-দুজন অনেক দিন ধরেই খেলছে। এ ধরনের পরিস্থিতিটা পার করেছে। কঠিন সময়ে তারা বেরও হয়ে এসেছে। আমি আসলে প্রত্যাশা করছি তারা এখান থেকে বের হয়ে আসতে পারবে। ’

প্রথম তিন ম্যাচে উড়ন্ত জয়। বোনাস পয়েন্ট। উড়তে থাকা বাংলাদেশকে বৃহস্পতিবার একেবারে মাটিতে নামিয়ে এনেছে শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশ অলআউট ৮২ রানে, ৭১ বলেই জয়, ১০ উইকেট অক্ষত রেখে ম্যাচ জিতে নিযেছে শ্রীলঙ্কা।